দার্জিলিংয়ের ময়দান ছাড়ছেন না শ্রীঙলা। ভোটের প্রাগ লগ্নে শিলিগুড়ির মাটি আঁকড়ে থাকার বার্তা প্রাক্তণ বিদেশ সচিবের। ভোট যত এগিয়ে আসছে ততই ভাজপা সাংসদ প্রার্থীর রাজু বিস্তার পায়ের তলায় মাটি ক্রমশ যেন আলগা হয়ে আসছে।

শিলিগুড়ি। দার্জিলিংয়ের ময়দান ছাড়ছেন না শ্রীঙলা। ভোটের প্রাগ লগ্নে শিলিগুড়ির মাটি আঁকড়ে থাকার বার্তা প্রাক্তণ বিদেশ সচিবের। ভোট যত এগিয়ে আসছে ততই ভাজপা সাংসদ প্রার্থীর রাজু বিস্তার পায়ের তলায় মাটি ক্রমশ যেন আলগা হয়ে আসছে। নিজ দলের বিক্ষুদ্ধ শিবিরের কাঁটার খোঁচায় রক্তাক্ত ভাজপা সাংসদ প্রার্থী রাজু বিস্তা। একদিকে নিজদলের কার্শিয়াঙ বিধায়ক ভাজপা প্রার্থীর বিরুদ্ধে নির্বাচনী ময়দানে নির্দল প্রার্থী হিসেবে রয়েছে। অপরদিকে ভোটের হাতে গোনা ৮৪ঘন্টা আগেও পদ্ম শিবিরের অন্তরে রাজু বিরোধী বিক্ষুদ্ধ শিবিরকে এক ছাতার তলায় আনা সম্ভব হয়নি। পাল্টা ভোটের চূড়ান্ত সময়তে রাজুর বিতর্কিত অডিও ক্লিপ সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে দিয়ে রাজু বিস্তা বিরোধী প্রচারে সক্রিয় হয়ে উঠছে পদ্ম ঘরের একাংশ। আর তার মাঝেই প্রাক্তণ বিদেশ সচিব হর্ষবর্ধন শ্রীঙলার বার্তা যথেষ্টই তাৎপর্যপূর্ণ। প্রাক্তণ সচিব হর্ষবর্ধন শ্রীঙলা দিল্লীর সংবাদমাধ্যমে জানিয়েছেন তিনি শিলিগুড়ি ও দার্জিলিং জেলার মাটি ছাড়ছেন না। শিলিগুড়ি ও দার্জিলিং জেলায় তার সমাজ সেবা মূলক কাজ চালিয়ে যাবেন তিনি। তার মন্তব্যে দার্জিলিং জেলায় দার্জিলিং ওয়েলফেয়ার সোসাইটি নামে তার স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের মধ্য দিয়ে সমাজ সেবা মূলক কাজ চালিয়ে যাওয়ার কথা জানিয়েছেন। কিন্তু রাজনৈতিক মহল জুড়ে জোড় চর্চা ঘটে ৮৪ ঘন্টা আগে এ ধরনের মন্তব্য নিছক সাধারণ বার্তা নয়। এই বার্তাকে নেহাদি সাধারণ বার্তা বলে মানতে নারাজ রাজনৈতিক মহলের একাংশ। তাদের দাবি ভোটের মুখে এই মন্তব্য যথেষ্টই তাৎপর্যপূর্ণ। সংগঠনের মধ্য দিয়ে দার্জিলিং জেলার হয়ে সমাজ সেবামূলক যে কাজগুলি করে যেতে চাইছেন তার মধ্য দিয়ে এই বার্তায় স্পষ্ট যে দার্জিলিং জেলার জমিন ছাড়ছেন না তিনি। তার মত বুদ্ধিদৃপ্ত মানুষ এই বার্তা ভোটের মুখে ছলে বলে কৌশলে আর্থিক প্রলোভনে দার্জিলিং লোকসভা কেন্দ্রের টিকিট করায়ত্ত রাজু বিস্তাকে চাপের মুখে ঠেলে দিয়েছে তা বলার অপেক্ষা রাখেনা। কারণ প্রাক্তন আমলার দাবি অনুযায়ী তার তার স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন প্রায় দশক পুরোনো। তবে জি টোয়েন্টি কো অর্ডিনেটর হয়ে দার্জিলিং এ গুরুত্বপূর্ণ কাজের দায়িত্বে থাকার পরবর্তী সময়ের মধ্যেই দার্জিলিং জেলার একটা বড় অংশের মানুষের সঙ্গে ব্যাপক জনসংযোগ তৈরি করে ফেলেছিলেন তিনি। মূলত রাজুর হাতে দার্জিলিং এর বিজেপির অবস্থান খাদের কিনারায় পৌঁছয়। বেগতিক পরিস্থিতি বুঝতে পেরেই দিল্লির মসনদ মোদি ম্যান তথা শাহ ঘনিষ্ঠ প্রাক্তণ সচিবকে পাহাড়ে লোকসভায় প্রার্থী ঘোষণার সম্ভাবনার কথা জানিয়ে হাল ফেরানোর দায়িত্ব দেয়। জব ফেয়ার করে ২৭০ জন নতুন প্রজন্মের যুবক-যুবতীদের চাকরির ব্যবস্থা করেছেন বলেও দাবি করেছেন তিনি। দেশের এই অংশের নতুন প্রজন্ম এবং পাহাড়বাসি প্রবীণ নাগরিকদের জন্য সেবামূলক কাজ চালিয়ে যাবেন বলেই বার্তা দিয়েছেন শ্রীঙলা। তবে ভোটের মুখে প্রাক্তণ সচিব শ্রীঙলার বার্তা পাহাড়ের ভাজপা প্রার্থী রাজুর বিপক্ষে প্রতিকূল হাওয়ার দাপটকে বাড়িয়ে দিচ্ছে। কার্যত শ্রীঙলার সঙ্গে থাকা ভাজপা সমর্থকদের কিঞ্চিৎ অংশকে কেন্দ্রীয় নেতৃত্বদের ধমক চমকে প্রশমিত করা সম্ভব হলেও এই বার্তা ভাজপার অন্দরের চাপানোতরকে কয়েক গুণ বাড়িতে তুলেছে। যাতে পদ্ম প্রার্থীর কপালে দুশ্চিন্তার ভাঁজ পড়ছে। রাজনৈতিক মহলের জোড় গুঞ্জন প্রাক্তন বিদেশ সচিবের বার্তার আগে রাজু বিস্তার টিকিট পাওয়াকে কেন্দ্র করে কার্যকর্তার সঙ্গে ফোনে কথোপকথনের বিতর্কিত অডিও ক্লিপ সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়া মধ্যে রয়েছে কি বিশেষ যোগসূত্র!অন্যদিকে এই রাজনৈতিক প্রতিকূলতার মুখে দলের বিক্ষুদ্ধ কাটায় বিদ্ধ ভাজপা প্রার্থী রাজুর পায়ের নীচের জমিনকে আলগা করছে।

You cannot copy content of this page